You are here
Home > Basic Knowledge > টিম ম্যানেজমেন্ট কি, কেন, কিভাবে?

টিম ম্যানেজমেন্ট কি, কেন, কিভাবে?

টিম ম্যানেজমেন্ট
Spread the love

টিম ম্যানেজমেন্ট (Team Management) কি, কেন, কিভাবে?

 

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে এমন কিছু কাজ আছে যা আমরা একা করতে পারি না।
এজন্য আমাদের চারপাশের মানুষের থেকে সাহায্যের প্রয়োজন হয় বা একসাথে কাজ করার প্রয়োজন হয়।

আর এই মানুষ গুলোর সেই কাজ গুলো করতে, একত্রে আলোচনা, শেয়ারিং ও কাজ করার দরকার হয়।

কিন্তু, সমস্যা হচ্ছে এই যে মানুষ গুলো একসাথে কাজ করবে ঠিক।
কিন্তু তারা যদি ভিন্ন উদ্দেশ্যের হয়ে থাকে তাহলে তারা কখনোই একসাথে কাজ করতে পারবে না।

একটা উদ্দেশ্য স্থির করে, এই মানুষ গুলো একসাথে কাজ করাই হলো টিম ওয়ার্ক।

এই ধরনের টিম ওয়ার্ক দেখা যায় অফিস -আদালতে বা বিভিন্ন কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান এ।

আর এদের মধ্যে যে এই টিম ওয়ার্ক এর স্ট্রাকচার সাজিয়ে সবার মধ্যে কাজ ভাগ করে দেবে ও নিজেও কাজ করবে সেই হলো টিম লিডার। আর তার কার্যক্রম গুলোই হবে টিম ম্যানেজমেন্ট(Team Management)।

যেমনঃ

বসরী একটা ঔষধ কোম্পানি তে দ্বায়িত্ব পেল একটা কোম্পানির মেডিকেল সার্ভিসেস ডিপার্টমেন্ট টা পরিচালনা করার।
যেখানে ১০০ মানুষ কে তার প্রতিদিন মনিটরিং করতে হবে ১২ ঘন্টা করে।

আরিফ ফিল্ড ভিজিটিং এ,
রিয়াজ সকালের এটেন্ডেন্স নিতে,
অনিক দুপুরের খাবারের টাইমিং এ,
আর মোশাররফ তাকে মোবাইল ট্রাকিং এ সাহায্য করছিল।

এখানে, আরিফ, রিয়াজ, অনিক, মোশাররফ তার টিম মেম্বার। 

বসরী তাদের কে কাজে উৎসাহ দেয়ার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে লাগলো। আর সবার কাজ গুলো নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে ভাগ করে বুঝিয়ে দিল।

এখন বসরী ই তার টিম মেম্বারদের জন্য এমন সব উদ্যোগ নেবে যাতে তারা নিজেদের সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে কাজ করে যেটাতে বসরীর কাজে সফলতা আসে।

বসরী, তাদের কে কাজের সাথে সাথে বিনোদন, রিল্যাক্স করার সুযোগ দেয়, যাতে তারা একে অন্যের সাথে কাজের সময় ছাড়াও মিলেমিশে থাকতে পারে, কানেক্টেড থাকে। অফিসের বাইরেও বিভিন্ন বিষয়ে শেয়ার করে কাজ নিয়ে।

এভাবে বসরী তার ডিপার্টমেন্ট টা সফল ভাবে পরিচালনা করতে ও তার টিম মেম্বার দেরকেও অন্যদের সামনে হাইলাইট করতে সফল হলো।

এই পুরো বিষয়টি ই হলো টিম ম্যানেজমেন্ট (Team Management)।

▪️একটা সফল টিম ম্যানেজমেন্ট এর জন্য যেসব বিষয় থাকা জরুরিঃ

✔️সমন্বিত নেতৃত্বঃ

যেকোনো টিম পরিচালনার জন্য সমন্বিত নেতৃত্ব দানের ক্ষমতা থাকা জরুরি।
অর্থাৎ যেকোনো সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় যদি টিম মেম্বার দের আলাদা আলাদা মন্তব্য থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে টিম লিডার একাই একটা সার্বিক বিষয়ে চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নেবে।
আবার যদি সবার মন্তব্য একই ধরনের হয় তাহলে তাদের মতেই সিদ্ধান্ত নেবে।
এতে করে টিম মেম্বার রা বুঝে যাবে যে, টিম একাধিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কাজ করবে না।
সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য শুধুমাত্র একটি মতামত ই গ্রহনযোগ্য হবে।

✔️নিজেদের মধ্যে পর্যাপ্ত যোগাযোগ থাকতে হবেঃ

টিম লিডার থেকে শুরু করে টিমের প্রতিটি মানুষের মধ্যে যথেষ্ট কার্যকর বা পর্যাপ্ত যোগাযোগ থাকতে হবে। কানেক্টেড থাকতে হবে একে অন্যের সাথে।
এতে করে সবাই সবার মতামত ব্যক্ত করতে পারবে, শেয়ারিং ও হেয়ারিং ভাল হলে সিদ্ধান্ত নেয়া সহজ হবে।

✔️সবার উদ্দেশ্য একটাই থাকতে হবেঃ

একেকজনের একেক উদ্দেশ্য থাকলে কাজের উদ্দেশ্য পরিবর্তিত হবে।
তাই টিমের সকলের কাজের উদ্দেশ্য একক থাকতে হবে।
আসল লক্ষ্য কি❓ এটা টিম মেম্বার দের যথাযথ ভাবে বুঝিয়ে দিতে হবে। তাহলে, তারা তাদের কাজের উদ্দেশ্য বা সফলতা সম্পর্কে নিশ্চিত থাকবে।

✔️টিম মেম্বার দের কার্যক্রম স্পষ্ট ভাবে বুঝিয়ে দেয়াঃ

 

একটা টিমের উদ্দেশ্য বা লক্ষ্যে পৌঁছাতে সমস্যা হয় যদি টিম মেম্বার দের কার্যক্রম সঠিক ভাবে বুঝিয়ে দেয়া না হয়।
এতে সবাই সবার কাজের স্ট্রাকচার বুঝতে পারেনা। ফলে কাজের উদ্দেশ্য বা সফলতা অর্জন এ এগিয়ে যেতে পারেনা।
তাই কাজে নামার আগে টিম মেম্বার দের কার্যক্রম স্পষ্ট ভাবে বুঝিয়ে দেয়া জরুরি।

▪️টিম ম্যানেজমেন্ট এর কিছু পদ্ধতিঃ

✔️আদেশ ও নিয়ন্ত্রণঃ

কাজের ক্ষেত্রে যে কোনো একটা আদেশ করে, টিম লিডার হারিয়ে গেলে চলবেনা।
যেকোনো কাজের নির্দেশ দেয়ার পর তা ঠিক ভাবে হচ্ছে বা করছে কিনা তার জন্য মেম্বারদের কে নিজের কন্ট্রোল এ রাখা জরুরি। প্রতিনিয়ত তাদের কন্ট্রোল টিম লিডার এর কাছে থাকা জরুরি।

✔️লেগে থাকা ও নতুন আইডিয়া তৈরি করাঃ

এই পদ্ধতি তে মেম্বার রা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করা ও সেক্ষেত্রে অবদান রাখতে আগ্রহী হয়।
সব কাজ টিম মেম্বার দের কাধে চাপিয়ে দিলে হয়না। নিজেরও সাথে সাথে কাজ করতে হবে।
তাহলে, টিম মেম্বার রা কাজে আরও উৎসাহি হবে।
কাজের মধ্যে সবসময় লেগে থাকা মেম্বার দের থেকে পাওয়া মতামত, শেয়ারিং, জ্ঞান নতুন নতুন আইডিয়া ক্রিয়েট করতে সাহায্য করে।

▪️টিম ম্যানেজমেন্ট এর সমস্যাঃ

✔️বিশ্বস্ততার অভাবঃ

টিম লিডারের একাগ্রতা বেশি হয়ে গেলে, অনেক সময় টিম মেম্বার রা ভুল করলেও নিজে ধরা পড়া বা অপমানিত হওয়ার ভয়ে নিজেদের ভুল স্বীকার করতে চায় না। এক্ষেত্রে ভুল টা সুধরে সঠিক পথে এগোনো তে একটা জটিলতা তৈরি হয়।
তাই মেম্বার রা কাজের প্রতি বিশ্বস্ত হতে পারেনা ফলে মূল লক্ষ্য বা কাজের সফলতা বাধাপ্রাপ্ত হয়।

✔️দ্বিমত পোষণ করতে ভয় পায়ঃ

দেখা যায় অনেক টিম মেম্বার তাদের টিম লিডার বা অন্য টিম মেম্বার দের মতের সাথে একমত হতে পারেনা।
কিন্তু, ঝামেলা এড়াতে বা ভয় থেকে সেটা বলেনা।
মনে মনে রাখে। এর ফলে ঐ টিম মেম্বার এর দ্বায়িত্ব পালনেও জটিলতা তৈরি হতে পারে।
আর টিমের একজনের কাজে জটিলতা তৈরি হলে তা অন্যদের কাজেও প্রভাব ফেলতে পারে।

✔️প্রতিশ্রুতির অভাবঃ

টিম লিডার তার মেম্বার দের কাছ থেকে মূল লক্ষ্যে এগিয়ে যাওয়ার বা উদ্দেশ্য ঠিক রাখার জন্য কাজ করতে সঠিক ও সৎ প্রতিশ্রুতি পায় না ইনেক সময়।
কারণ,
যখন কোনো টিম মেম্বার যেকোনো কাজের সিদ্ধান্ত গ্রহনে পক্ষে বা বিপক্ষে মতামত দেয় না। এর মানে তারা ঐ কাজে সন্তুষ্ট না বা যেকোনো একটা অসুবিধা তারা বোধ করছে।
কিন্তু, তারা এটা না বলার কারণে দ্বায়িত্ব পালনে বিভিন্ন জটিলতার সৃষ্টি হতে পারে।

✔️দ্বায়িত্ব অবহেলাঃ

যখন কোনো টিম মেম্বার তার কাজের সিদ্ধান্ত গ্রহনে পক্ষে বা বিপক্ষে কোনো মতামত রাখার সুযোগ পায় না তখন সে নিজেকে উক্ত কাজের জন্য দ্বায়িত্ববান ভাবেনা কিংবা জবাবদিহি করারও প্রয়োজন মনে করে না।
এতে করে কাজের ফলাফল ভাল হয়না। ফলে দ্বায়িত্বে অবহেলা করা শুরু করে।

✔️মূল ফলাফল অর্জনে ব্যর্থ হওয়াঃ

প্রতিশ্রুতি, বিশ্বস্ততা ও মত প্রকাশের অবহেলায় পড়ে, যখন টিম মেম্বার রা তাদের দ্বায়িত্ব অবহেলা করতে থাকে তখন তাদের দ্বায়িত্বশীলতার অভাবে কাজের মূল উদ্দেশ্য ব্যহত হয় এবং প্রকৃত আশানুরূপ সাফল্য আসে না কাজের।
এতে করে কাজের সফলতা না এসে ব্যর্থতা বয়ে আনে।

▪️টিম ম্যানেজমেন্ট এর মাধ্যমে যেভাবে সমস্যা গুলোর সমাধান করা যায়ঃ

✔️বিশ্বস্ততা বাড়ানো যায়ঃ

একজন টিম লিডার নিজে বা অন্য টিম মেম্বার দিয়ে যে মেম্বার এর কারণে সমস্যা হচ্ছে তাকে সরাসরি প্রশ্ন করে তার সমস্যা বা জিজ্ঞাসা জেনে নিতে পারে অথবা থাকে কথা বলার ও নিজের মন্তব্য দেয়ার অভয় দিতে পারে।

✔️মতামতের মূল্যায়ন করেঃ

মাঝে মাঝে টিম মেম্বার দের মতামত যদি মনেও হয় যে তা উদ্দেশ্য সফলজনক না তবুও গ্রহণ করা উচিৎ।
এতে করে ব্যর্থ হয়ে গেলে উক্ত টিম মেম্বার নিজেও নিজের ভুল বুঝতে পারবে।
তাছাড়া, যদি সব সময় আদেশ না দিয়ে বন্ধুসুলভ আচরণ করা যায় তাহলে, মেম্বার রা নিজেদের মধ্যেও একে অন্যের সাথে মতামত শেয়ার করার ও কাজের ভাল খারাপ শেয়ার করার সুযোগ পায়।

✔️টিমের উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ডঃ

এটি টিম মেম্বার দের মধ্যে বোঝাপড়া টা ভাল রাখবে।
একে অন্যকে সহজেই বুঝতে পারবে। যেকোনো কাজেই একে অন্যের সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। তাছাড়া এর মাধ্যমে টিম মেম্বার দের বোঝাও যায় খুব সহজ ভাবে।
নরমালি যেকোনো অনুষ্ঠান এ গেলে মানুষ আনন্দ পায়, উপভোগ করে, রিল্যাক্স থাকে। তাই এই ধরনের আয়োজন করা যেতে পারে।

✔️যেকোনো কাজ টিম কে আরও কার্যকর করে তোলাঃ

কোন কাজ টিম কে আরও কার্যকর করে তুলতে পারে তা এনালাইসিস করতে হবে।
এটা হতে পারে কাজের আইডিয়া বা তথ্য নিয়ে মেম্বার দের সাথে আলোচনা করা।
তাছাড়া, যদি কারও মধ্যে মতদ্বন্দের তৈরি হয়েও যায় তবুও এই ধরনের এনালাইসিস এর মাধ্যমে তাদের দৈত্বমতের কারণ খুজে পাওয়া সম্ভব হয়।
এতে করে টিমের মেম্বার দের কে কাজের প্রতি অনেক কার্যকর অবদান রাখানো যায়।
যাতে করে, আসল উদ্দেশ্যে পৌঁছানো সম্ভব হয়।

টিম ম্যানেজমেন্ট যেকোনো প্রতিষ্ঠান বা যেকোনো কাজের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

আমরা জানি যে,
” দশে মিলে করি কাজ,
হারি জিতি নাহি লাজ”

একটা কাজ ১০ জন বা একটা টিম মিলে করলে সে কাজের সফলতাও যেমন অনেক বেশি, তেমনি কাজে কোনো কারণে ব্যর্থ হলেও তা সবাই মিলে ভাগাভাগি করে নেওয়া যায়। ফলে ব্যর্থতার গ্লানিও বেশি বইতে হয় না।

টিম ম্যানেজমেন্ট যেকোনো কাজে ই শক্তিশালী ভূমিকা পালন করতে পারে একটা কাজের কার্যকর সফলতা আনতে।
এক্ষেত্রে টিম লিডারকেও যথেষ্ট বিচক্ষণতার পরিচয় দিতে হয়।

ডাঃ বসরী, ইউনানি চিকিৎসক
ছবিঃ লেখিকা- ডাঃ বসরী, ইউনানি চিকিৎসক

Spread the love
খাতুনে জান্নাত আশা
This is Khatun-A-Jannat Asha from Mymensingh, Bangladesh. I am entrepreneur and also a media activist. This is my personal blog website. I am an curious woman who always seek for new knowledge & love to spread it through the writing. That’s why I’ve started this blog. I’ll write here sharing about the knowledge I’ve gained in my life. And main focus of my writing is about E-commerce, Business, Education, Research, Literature, My country & its tradition.
https://khjasha.com

Leave a Reply

Top
%d bloggers like this: