You are here
Home > Blog > Product / Service Pricing

Product / Service Pricing

Spread the love

মূল্য নির্ধারণ (Pricing)

আমার কাছে এই মূল্য নির্ধারণ বা প্রাইসিং ব্যাপারটাকে ব্যবসার অন্যতম জটিল একটা প্রসেস বলে মনে হয়। কারণ আমি নিজে এই প্রাইসিং নিয়ে অনেক ভুগেছি, এখনও রিসার্চ করে যাচ্ছি আর কিভাবে আমি প্রাইসিং এ আপডেট আনতে পারি তার জন্য।

আপনার কাজের একটা মূল্য নির্ধারণের ক্ষেত্রে আপনাকে বিভিন্ন দিক চিন্তা করতে হবে। এখানে শুধু আপনার খরচ কত হলো আর কত প্রাইস ফিক্স করলে আপনার লাভ থাকবে এভাবে কিন্তু ব্যাপারটা আসলে ভাবা যাবেনা।

আপনার খরচ আর আপনি কত প্রফিট করতে চান অর্থাৎ আয় এবং ব্যয় এসব তো ভাববেনই তার বাইরেও আপনাকে অনেক বিষয় নিয়ে এনালাইসিস করতে হবে।

আমি বিষয়গুলো একটু ভিন্নভাবে এবং সহজভাবে বলার চেষ্টা করছি –

প্রথমে ভাবতে হবে আপনি পন্য নিয়ে কাজ করছেন নাকি সেবা… দুইটার প্রাইসিং প্রসেস হবে অনেকটাই আলাদা।

আবার পন্য নিজে উৎপাদন করছেন নাকি উৎপাদিত পন্য কিনে এনে সেল করছেন, সেবা নিজে দিচ্ছেন নাকি কাউকে দিয়ে দেওয়াচ্ছেন। ভিন্ন সিচুয়েশনে ভিন্নভাবে দাম নির্ধারণ করতে হবে।

 আপনি অনলাইন ব্যবসা করবেন নাকি অফলাইন। অফলাইনে আপনার খরচ বেশি, অনলাইনে খরচ কম। এর প্রভাব প্রাইসিং এ অবশ্যই পড়বে। একি পন্যের দাম তাই দুই ধরনের ব্যবসার ক্ষেত্রে দুই রকম হবে।

প্রাইসিং এর ক্ষেত্রে অন্যতম পার্ট হচ্ছে লোকেশন। লোকাল বেইসড অর্থাৎ গ্রামে বিজনেস হলে একরকম আবার শহর বেইসড হলে অন্যরকম।

টার্গেট মার্কেটের উপর ভিত্তি করেও প্রাইসিং প্রসেস ডিফারেন্ট হবে।

যেমন-

আপনি যদি সমাজের উচ্চবিত্তদেরকে কেন্দ্র করে কোন পন্য বা সেবা দেন সেটার প্রাইসিং হবে একরকম আবার মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত বা একেবারে নিম্নবিত্ত কেন্দ্রিক হলে প্রত্যেকটা ক্লাসের জন্য আলাদাভাবে প্রাইসিং এর কথা ভাবতে হবে।

আবার যদি আপনার টার্গেট মার্কেট সব ক্লাসের মানুষ হয় তাহলেও আপনার প্রাইসিং প্রসেস আলাদা হবে। সেক্ষেত্রে সব ক্লাসের জন্যই যদি আপনি পন্য বা সেবা দিয়ে চান তবে ক্লাস অনুযায়ী আপনার পন্যেও ভেরিয়েশন আনতে হবে।

একটা উদাহরণ দেই-

ধরা যাক জুতার ব্র‍্যান্ডগুলোর কথা।
প্রথমে বাটা’র কথা ভাবেন। বাটার দোকানে কেউ জুতা কিনতে গেলে আমার ধারণা তাকে ফিরে আসতে হয় না। বাটা একদম নিম্নবিত্ত থেকে শুরু করে উচ্চবিত্ত পর্যন্ত সবার কথা ভেবে প্রাইসিং করে এবং সেই অনুযায়ী প্রোডাক্ট ভ্যারিয়েশনও করে।

আপনি সেখানে সাধারণ স্যান্ডেলও পাবেন আবার হাই স্ট্যান্ডার্ড স্যু ও পাবেন। বাটার জুতা আপনি গ্রামের বাজারের ছোট শপ গুলোতেও পাবেন, আবার বসুন্ধরা, যমুনা ফিউচার পার্কেও পাবেন।

আবার ভাবেন লোট্টো বা এপেক্স এর কথা। এই শপগুলোতে নিম্নবিত্তরা হয়ত কখনও ঢুকারও চিন্তা করতে পারেনা। তাদের প্রাইসিং শুরুই হয় একটা স্ট্যান্ডার্ড লেভেল থেকে এবং প্রোডাক্ট ডিজাইনও হাই ক্লাস সোসাইটির কথা মাথায় রেখে করা হয়।

 আবার আপনি যদি পাইকারি বিক্রেতা হোন তাহলে একরকম, খুচরা বিক্রেতা হলে অন্যরকম ভাবে দাম নির্ধারিত করতে হবে।

 আপনাকে আপনার প্রতিযোগীদের কথাও ভাবতে হবে, একই পন্য বা সেবা আপনার প্রতিযোগীরা কি দামে এবং কি মানে দিচ্ছে সেই অনুযায়ী আপনার পন্যের দাম বাড়াতে বা কমাতে হতে পারে।

 কাস্টমারদের সাইকোলজি এনালাইসিসও করতে হবে। মোস্ট ইমপোরটেন্টলি নিজেকে কাস্টমারের জায়গায় বসিয়ে ভাবতে হবে যে এই মানের পন্য আপনি কিনলে কেমন প্রাইসে সন্তুষ্টচিত্তে কিনতে চাইতেন।

মূল্য নির্ধারণ ব্যাপারটা ঠিক আপনার এই সবগুলো বিষয় মাথায় রেখেই ভাবতে হবে।

এখন বলি আমার উদ্যোগের মূল্য নির্ধারণের কথা-

অনেকেই জেনে থাকবেন আমি একজন মেহেদী আর্টিস্ট। আমার কাজ হল সার্ভিস বা সেবা দেয়া। আমি যখন কাজটা শুরু করার কথা ভাবছিলাম তখন প্রথমেই আমাকে ভাবতে হয়েছে এই প্রাইসিং নিয়ে।

আমি দিন রাত এক করে ফেসবুক,ইন্সটাগ্রাম আর ইউটিউবে রিসার্চ করা শুরু করি যে কারা কারা এই সার্ভিস দিচ্ছে, কোথায় দিচ্ছে, তাদের কাজের মান কেমন, কাজের বা ডিজাইনের ভ্যারিয়েশন কেমন, ডিজাইন এর ভ্যারিয়েশন অনুযায়ী কিভাবে তারা প্রাইসিং করছে।

 

রিসার্চ করে যা পেলাম –

প্রচুর প্রফেশনাল মেহেদী আর্টিস্ট আছেন, তারা অনেকেই পুরো টিম নিয়ে কাজ করছেন, প্রত্যেকের কাজের মান অসাধারণ, আর প্রায় সব আর্টিস্টরা ঢাকা বেইসড সার্ভিস দেন, ঢাকার বাইরে বুকিং পেলে যান যদি যাতায়াত খরচ আলাদা দেয়া হয়,

আর কয়েকজন আর্টিস্ট আছেন চিটাগং এর। উনারাও ঢাকার আর্টিস্টদের সাথে কম্পিটেবল সার্ভিসই দেন।


আর তাদের সবাই সার্ভিসের জন্য অনেক চার্জ করে থাকেন বেসিকাললি ব্রাইডাল ডিজাইন তো সর্বোচ্চ ১০০০০/১২০০০ টাকা পর্যন্ত চার্জ করা হয়, আর সিম্পল ডিজাইন সর্বনিম্ন ১৫০/২০০ থেকে শুরু হয়।

তো এতো সব রিসার্চের পর তো আমার মাথা ঘুরাচ্ছিল।


প্রথমেই যা উপলব্ধি করলাম আমাকে আরও নিঁখুতভাবে মেহেদীর খুঁটিনাটি সব বিষয় শিখতে হবে, আরও ভালো ডিজাইন করতে হবে, সেই ভাবনা থেকেই ইউটিউব নিয়ে শিখতে বসে গেলাম।

আর প্রাইসের জন্যও ছক কষতে লাগলাম। ভাবলাম এই সার্ভিসটি আমার শহরে একেবারেই নতুন, আমিই প্রথম শুরু করতে যাচ্ছি, এখানে আমার কম্পিটিটর বলতে পার্লারগুলো, কিন্তু রিসার্চ করতে গিয়ে দেখলাম পার্লারের ডিজাইন নিয়ে মানুষ খুশি না, তারা ঢাকার আর্টিস্টদের লাইভ দেখে কমেন্ট করছে বুকিং এর জন্য অর্থাৎ মেহেদীর জন্য সবাই স্পেশাললি একজন মেহেদী আর্টিস্টই খুঁজছে।

তো সবদিক বিবেচনায় দেখলাম এখানে আমিই আমার কম্পিটিটর। তাই আমাকে আরও ভাবতে হবে, কারণ নিজের সাথে কম্পিট করা আরও কঠিন কাজ। কারণ আমার শহরে আরেকজন আর্টিস্ট থাকলে তাকে স্ট্যান্ডার্ড ধরে আমি প্রাইসিং করতে পারতাম, সেটা সহজ হত।

কিন্তু এখন আমার দায়িত্বটা অনেক বেশি, আমাকে নিজের একেবারে নতুন একটা সার্ভিস কে পরিচিত করতে হবে, মানুষ এটাকে কিভাবে নিবে, কেমন ডিজাইন, কেমন প্রাইসে তারা সন্তুষ্ট হবে, আরও অনেক কিছু আমি ভেবেছি।


তারপর আমি নিজেকে কাস্টমারের জায়গায় বসিয়ে,সারা বাংলাদেশের সব আর্টিস্টদের প্রাইসিং স্ট্রাটেজি এনালাইসিস করে প্রাথমিকভাবে আমার যাত্রা শুরু করার মতো একটা সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পেরেছি।


কোন সার্ভিস চার্জ বা ট্রান্সপোর্ট কস্ট নিচ্ছি না। অনেক ক্ষেত্রে গিফট হিসেবে মেহেদী কোন আমি প্রোভাইড করছি… ইত্যাদি ইত্যাদি।

‍ তারপরও এই প্রাইসিং এ ৭০% ক্লায়েন্ট খুশি না, ডিসকাউন্ট চায়, ছোট শহর বেশির ক্লায়েন্ট কোন না কোনভাবে পরিচিত তারা এক্সট্রা সুযোগ চায়, আরও কত কি!!!

‍ আমি তাই এই প্রাইসিং নিয়ে এখনও রিসার্চের উপরেই আছি আর কিভাবে আমি এটাকে আপডেট বা ডেভেলপ করতে পারি তা নিয়ে ভাবছি, নিজের ডিজাইনেও পরিবর্তন আর ভেরিয়েশন আনার চেষ্টা করছি।

 যেভাবেই হোক আমার স্ট্যান্ডার্ড মেইনটেইন করেই তো ক্লায়েন্টদের খুশি রাখতে হবে… তাইনা?? 

(I’ve written this post when I was an professional mehndi artist in my city. That’s why I’ve given the real example according to that profession)


Spread the love
খাতুনে জান্নাত আশা
This is Khatun-A-Jannat Asha from Mymensingh, Bangladesh. I am entrepreneur and also a media activist. This is my personal blog website. I am an curious woman who always seek for new knowledge & love to spread it through the writing. That’s why I’ve started this blog. I’ll write here sharing about the knowledge I’ve gained in my life. And main focus of my writing is about E-commerce, Business, Education, Research, Literature, My country & its tradition.
https://khjasha.com

Leave a Reply

Top
%d bloggers like this: