You are here
Home > Blog > ব্লকচেইন প্রযুক্তি – Why is Blockchain Important and Why Does it Matters

ব্লকচেইন প্রযুক্তি – Why is Blockchain Important and Why Does it Matters

Spread the love

বিটকয়েন বা ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে আরও কিছু কথা

বিশ্ব প্রযুক্তিগত দিকে ধীরে ধীরে এগিয়ে যাচ্ছে। মানুষের জীবনযাত্রা আরও কিভাবে সহজ করা যায়, তা ভেবেই কিন্তু প্রতিনিয়ত উদ্ভাবনের চেষ্টা চলছে যত আপডেটেট প্রযুক্তির। তেমনি একটা প্রযুক্তি ব্লকচেইন, যার অন্যতম উপাদান এই ক্রিপ্টোকারেন্সি। নতুন প্রযুক্তি নিয়ে আমাদের জানতেই হবে, কারণ বহির্বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলার অন্যতম হাতিয়ার হলো প্রযুক্তিগত জ্ঞান আর দক্ষতা।

এক সময় আমাদের কাছে হয়ত মোবাইল ইন্টারনেট এসে আমাদের জীবনের সাথে মিশে যাবে, এগুলো ছাড়া আমাদের জীবন অচল মনে হবে, এটা অলিক কল্পনা মনে হত, যেমনটা এখন ব্লকচেইন আর ক্রিপ্টোকারেন্সির বিনিময়ের কথা ভাবতে গেলে মনে হয়। এই প্রযুক্তিগুলোও যে একদিন আমাদের দৈনন্দিন জীবনের সাথে মিশে যাবে না তাই বা কে বলতে পারে! তাই আগে নিজেকে জানার ক্ষেত্রে আপডেটেট রাখা ভালো।

** বিটকয়েন একটা সাংকেতিক মুদ্রা, এর কোনো ভিজ্যুয়াল অস্তিত্ব নেই, কোনো আকার নেই। এটা একটা কম্পিউটার সফটওয়্যার মাত্র।

বিটকয়েনের প্রয়োজনীয়তাঃ

আমরা কিন্তু অলরেডি কারেন্সির ডিজিটাল ভার্সন ব্যবহার করছি ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে। বিটকয়েন কিন্তু সেরকমই একটা ডিজিটাল মুদ্রা যার বৈশিষ্ট্য ভিন্ন, তবে কার্যক্রম একই৷ এই মুদ্রার ভিন্নতাই একে জনপ্রিয় এবং প্রয়োজনীয় করে তুলছে পুরোবিশ্বে।

১) এর নির্দিষ্ট কোনো নিয়ন্ত্রক নেই, এর বিনিময় নেটওয়ার্কের অন্তর্ভুক্ত সবাই যাস্ট একটা নেটওয়ার্ক চেইনের কানেক্টর মাত্র। তাই এর বিনিময় প্রক্রিয়া খুবই ফ্লেক্সিবল। সরাসরি প্রেরক প্রাপকের মাঝেই এই মুদ্রার সরাসরি বিনিময় হয় Peer to peer নেটওয়ার্কের মাধ্যমে। ধরেন, এই মুহুর্তে যদি আমার কাছে বিটকয়েন থাকত তবে হয়ত আমি সরাসরি সেটা পাঠিয়ে আমেরিকার কোনো বিক্রেতার কাছ থেকে কিছু কিনে ফেলতে পারতাম।

২) যেখানে আপনার ম্যানুয়ালি কোনো ব্যাংকের মাধ্যমে দেশের বাইরে টাকা পাঠাতে হলে আগামীকাল সকাল ১০টায় ব্যাংক খোলার জন্য অপেক্ষা করতে হবে, আবার শুক্র শনি দুইদিন আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে, সেখানে ব্লকচেইনের মাধ্যমে বিটকয়েন লেনদেন করতে যে কোনো জায়গায় ট্রান্সেকশন করা যায় মাত্র ১০ মিনিট সময়ের মাঝে।

ম্যানুয়াল ব্যাংকিং ব্যাবস্থা সপ্তাহে দুই দিন বন্ধ থাকার ফলে পুরো বিশ্বে মিলিয়ন বিলিয়ন টাকার ট্রান্সেকশন অফ থাকে এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়, যার সমাধান আসতে পারে ব্লকচেইন প্রযুক্তির মাধ্যমে এই ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোর ট্রান্সেকশন করার মাধ্যমে।

৩) বিটকয়েন বিনিময়ে নামমাত্র একটা চার্জ কাটা হয়,  ১০ টা বিটকয়েন পাঠালেও যা চার্জ ১০ মিলিয়ন পাঠালেও তাই।

৪) ক্রিপ্টোকারেন্সি জাল করা যায় না। একবার একটা বিটকয়েন বিনিময় করা হয়ে গেলে সেটা ফিরিয়ে আনা যায় না,  বা পরিবর্তন করা যায় না,  কারণ সেই মুদ্রা বিনিময় তথ্য বিশ্বের হাজার হাজার কম্পিউটারে ব্লকচেইনের মাধ্যমে স্টোর হয়ে যায়।

৫) ক্রিপ্টোকারেন্সি ইনফ্লেশন বা মুদ্রাস্ফীতি রোধ করতে পারে। কারণ কাগজের বা ধাতব মুদ্রার মতো এটা ইচ্ছে হলেই ছাপানো যায় না, কোনো দেশ যেমন ইচ্ছে মতো অর্থনৈতিক সুবিধাগুলো পাওয়ার জন্য কারেন্সির ইনফ্লেশন ডিফ্লেশন নিয়ন্ত্রণ করে, ক্রিপ্টোকারেন্সি দিয়ে তা অসম্ভব।

কিছু কৌতুহল-

বিটকয়েন দিয়ে কেনাবেচা করা যায় কিনা!

জ্বি অবশ্যই যায়, এখন বিশ্বের অনেক কোম্পানি সাধারণ মুদ্রার পরিবর্তে বিটকয়েনের মাধ্যমে তাদের প্রোডাক্ট সার্ভিস বিনিময় করে থাকে। পেপালের মাধ্যমেও এখন বিটকয়েন বিনিময় করে কেনাকাটা করা যায়।

বর্তমানে যেমন টাকার বদলে আমরা ক্রেডিট কার্ড দিয়ে শপিং করতে পারি, ভবিষ্যতে এমন হবে হয়ত যে, টাকা বা কার্ডের পরিবর্তে বিটকয়েন দিয়েই সবকিছু কেনা যাবে। তবে আমাদের দেশে কিন্তু এখনো নিষিদ্ধ, কয়েকদিন আগেও একজন ধরা পরেছে বিটকয়েন ব্যবহার করে।

বিটকয়েনের ক্যাশ আউট করার ওয়ে কেমন হয়?

এটা আসলে যারা বিটকয়েন কেনাবেচা করে তাদের উপর নির্ভর করবে যে, বিটকয়েনের বিনিময়ে তারা টাকা টা কিভাবে পেতে চান।


ধরেন আপনি বিটকয়েন কিনবেন, বাংলাদেশী টাকায় ৩২ লাখ টাকারও বেশি একটা বিটকয়েনের দাম। যার থেকে আপনি বিটকয়েন কিনবেন তাকে আপনি বিভিন্ন ভাবে এই টাকা পে করতে পারেন।

আপনার ব্যাংক একাউন্ট থেকে তার একাউন্টে ডিরেক্ট টাকা পাঠিয়ে দিতে পারেন আর সে তার বিটকয়েন আপনার ব্লক চেইন ওয়ালেটে ট্রান্সফার করে দিবে।

আবার সেই লোকটা যদি আপনার পাশের বাসার কেউ হয় তবে তাকে হাতে হাতে টাকা দিয়ে দিতে পারেন।

এছাড়া রয়েছে বিভিন্ন ব্যাংক এবং ব্রোকারেজ হাউজ যারা আপনাকে বিটকয়েন কেনাবেচায় টাকার লেনদেনে সহায়তা করবে এবং বিনিময়ে তারা একটা চার্জ নিবে। এরকম কিছু জনপ্রিয় ব্রোকারেজ হাউজগুলো হলো – Coinbase, Kraken, এছাড়াও P2P লেনদেনে সাহায্য করবে LocalBitcoins, Paypal, Payoneer, Western Union ইত্যাদি আরও অনেকগুলো মাধ্যম।


Spread the love
খাতুনে জান্নাত আশা
This is Khatun-A-Jannat Asha from Mymensingh, Bangladesh. I am entrepreneur and also a media activist. This is my personal blog website. I am an curious woman who always seek for new knowledge & love to spread it through the writing. That’s why I’ve started this blog. I’ll write here sharing about the knowledge I’ve gained in my life. And main focus of my writing is about E-commerce, Business, Education, Research, Literature, My country & its tradition.
https://khjasha.com

Leave a Reply

Top
%d bloggers like this: