You are here
Home > Blog > ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলো কীভাবে সাসটেইনেবিলিটি বা গ্রিন প্র্যাক্টিস করতে পারে?

ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলো কীভাবে সাসটেইনেবিলিটি বা গ্রিন প্র্যাক্টিস করতে পারে?

গ্রিন ফ্যাশন

ট্যাক্সটাইল এবং ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি প্রচুর পরিমাণে কঠিন তরল বর্জ্য উৎপন্ন করছে, পানি দূষণ করছে, গ্রিন হাউজ গ্যাস এবং কার্বন নিঃসরণ করছে, যা পরিবেশের জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ। আবার এই ইন্ডাস্ট্রিতে অনেক শ্রমিকদেরকে বিপজ্জনক এবং ক্ষতিকর উপকরণের সংস্পর্শে কাজ করতে হয়, কম মুজুরি দেয়া হয় এবং দীর্ঘ সময় বিরতিহীন ভাবে কাজ করানো হয় বলেও অভিযোগ রয়েছে, যা মানবাধিকার লঙ্ঘন করে৷ 

সাসটেইনেবল ফ্যাশন প্র্যাক্টিসের উদ্দেশ্য হলো উপরোক্ত সমস্যাগুলোর সমাধান করা, পরিবেশকে দূষণমুক্ত করে এবং মানবাধিকার রক্ষা করে ইথিকাল ইন্ডাস্ট্রি গড়ে তোলা। 

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সারাবিশ্বেই টেকসই ট্যাক্সটাইল এবং ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি গড়ে তোলা মূল আলোচনার বিষয়বস্তুতে পরিণত হয়েছে। বর্তমানে অনেক ফ্যাশন ব্র্যান্ডই সাসটেইনেবল প্র্যাক্টিস শুরু করেছে, আবার অনেক ব্র্যান্ড এখনো একে খুব একটা আমলে নিচ্ছে না। তবে ক’দিন আগে আর পরে সবাইকেই সাসটেইনেবল ফ্যাশনে মুভ করতে হবে যদি পৃথিবীকে আমরা আমাদের বসবাসের উপযোগি রাখতে চাই। 

অনেক ব্র্যান্ড আবার এই সাসটেইনেবল শব্দটির সুবিধা নিয়ে বিজনেস করতে চাইছে। যেমন- কোনো ব্র্যান্ড খুব সামান্য পরিমাণ সাসটেইনেবল প্র্যাক্টিস করেই সেটাকে প্রচার করছে সাসটেইনেবল ব্র্যান্ড হিশেবে। অনেকে ব্র্যান্ড যেমন খুব স্বল্প পরিমাণ অর্গানিক ফেব্রিক বা রিসাইকল ফেব্রিক ব্যবহার করেই তাদের পোশাককে শতভাগ সাসটেইনেবল বা গ্রিন ফ্যাশন বলছে। এগুলোকে “গ্রিন ওয়াশিং” বলে সম্বোধন করা হয়। গ্রিন ওয়াশিং হলো ক্রেতাদেরকে ইমোশনালি বিভ্রান্ত করার একটা পদ্ধতি, যার মাধ্যমে সম্পূর্ণ গ্রিন বা পরিবেশ বান্ধব না হওয়ার পরও গ্রিন বলে সেল করা হয়। ক্রেতাদেরকে তাই পরিবেশ বান্ধব এবং সাসটেইনেবল ফ্যাশন সম্পর্কে সচেতন হতে হবে, জানতে হবে, স্পষ্ট ধারণা নিতে হবে। 

যে সব বিষয়ের উপর ভিত্তি করে সাসটেইনেবল ফ্যাশনকে সংজ্ঞায়িত করা যায় তা নিম্নরূপঃ

  • উপকরণের ব্যবহার 
  • শ্রমিকের ব্যবহার 
  • প্রযুক্তি এবং পদ্ধতির ব্যবহার 
  • বর্জ্য নিষ্কাশন এবং পুনর্ব্যবহার ব্যবস্থা 
  • পণ্যের প্রমোশন এবং প্যাকেজিং স্ট্র‍্যাটেজি 
  • পণ্যের ডিস্ট্রিবিউশন, বাজারজাতকরণ, বিক্রি
  • ক্রেতার ব্যবহারের পর পণ্যের রিসাইকল ব্যবস্থাপনা 

সচেতন ব্র্যান্ডগুলো সাসটেইনেবল ফ্যাশন নিশ্চিত করতে পারে নিম্নোক্ত পদ্ধতিগুলোর চর্চার মাধ্যমে-

  • উৎপাদন প্রক্রিয়ায় ভার্জিন বা অব্যবহৃত কাঁচামালের ব্যবহার যতটা সম্ভব কম করা, রিসাইকল কাঁচামালের ব্যবহার বেশি করা। 
  • ফাইবার বা সুতার উৎপাদনে কোনো রকম কীটনাশক এবং ক্ষতিকর রাসায়নিক ব্যবহার না করা। 
  • কোনো বিপজ্জনক উপাদান, পদ্ধতি বা প্রযুক্তির ব্যবহার না করা।
  • উৎপাদনের সব ধাপে কোনো প্রকার উপাদানের অপচয় না করা।
  • প্যাকেজিং এ প্লাস্টিকের ব্যবহার না করা।
  • শ্রমিকদেরকে উপযুক্ত মুজুরি দেয়া এবং সুবিধা অসুবিধা সবকিছুর খেয়াল রাখা। 
  • কোনো ট্রেন্ডি পোশাক বা নির্দিষ্ট সাইজের পোশাক উৎপাদন না করা।
  • ব্যবহৃত পানি এবং বর্জ্যের পুনর্ব্যবহার করা। 
  • স্থানীয় শ্রম, দক্ষতা এবং কাঁচামাল ব্যবহার করা। 
  • রিসাইকল কটন বা পলিয়েস্টার ইত্যাদি উপাদান ব্যবহার করা। 

ক্রেতাদের দায়িত্ব এবং পরামর্শঃ

  • কম পরিমাণে কেনা।
  • সেকেন্ড হ্যান্ড পোশাক কেনা।
  • সম্ভব হলে পোশাক ভাড়া করে পরা। যেমনঃ বিয়ের পোশাক, যা মাত্র একদিনই পরা হয়।
  • কাস্টমাইজ করে পোশাক তৈরি করে নেয়া। 
  • টেকসই, দীর্ঘস্থায়ী এবং ক্লাসিক ফ্যাশন যা সহজে পরিবর্তনীয় নয় এমন পোশাক কেনা। যেমনঃ শাড়ি।
  • পুরনো পোশাক দান করে দেয়া।
  • কারো সাথে পোশাক বিনিময় করা, যেমনটা আমরা ভাই-বোনদের মাঝে করে থাকি। 
  • অতিরিক্ত পোশাক বা ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা শেষ হয়ে গেলে সেগুলো বিক্রি করে দেয়া। 
  • রিপ্যায়ার, রিইউজ বা আপসাইকল করে পোশাকের লাইফ সাইকল দীর্ঘ করা। 

তাই বলা যায় যে, সাসটেইনেবল বা গ্রিন ফ্যাশনের চর্চা বৃদ্ধি করতে হলে ক্রেতা বিক্রেতা উভয়কেই নিজ নিজ জায়গা থেকে সচেতন এবং আন্তরিক হতে হবে। তাহলেই দূষনের কারণ না হয়ে বরং পরিবেশ, জীববৈচিত্র্য তথা সমগ্র পৃথিবীকেই রক্ষা করতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারবে এই ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি। 

খাতুনে জান্নাত আশা
This is Khatun-A-Jannat Asha from Mymensingh, Bangladesh. I am entrepreneur and also a media activist. This is my personal blog website. I am an curious woman who always seek for new knowledge & love to spread it through the writing. That’s why I’ve started this blog. I’ll write here sharing about the knowledge I’ve gained in my life. And main focus of my writing is about E-commerce, Business, Education, Research, Literature, My country & its tradition.
https://khjasha.com

Leave a Reply

Top